তথ্যপ্রযুক্তি

বারমুদা ট্রায়াঙ্গেরের রহস্য উন্মোচন

বারমুদা ট্রায়াঙ্গেরের রহস্যকুড়িগ্রাম লাইভ ডেস্ক :  বারমুদা ট্রায়াঙ্গেলের রহস্য উন্মোচনের দাবি করেছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, সেখানে কোনো অলৌকিক কিছু নেই কিংবা সাগরের দানবীয়তাও নয়। এটা অন্য ধরনের একটা বিষ্ময়! এটা স্রোতের বিষ্ময়।

বারমুদা ট্রায়াঙ্গেল, যেটা শয়তানের আশ্রম নামেও পরিচিত – সেটা উত্তর আটলান্টানিককে অবস্থিত, যেটা মূলত মিয়ামী, বারমুদা এবং পুয়ের্তো রিকো দ্বারা বেষ্ঠিত।

বলা হয়ে থাকে, ওই এলাকার উপর দিয়ে যাতায়াতকালে অনেক বিমান এবং অনেক জাহাজ গায়েব হয়ে গেছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, সেখানে স্রোতের একটা দুর্বৃত্তায়ন আছে।

‘‘সুর্যের আবর্তনের নিয়ম অনুযায়ী সেখানে দক্ষিণ ও ‍উত্তরের ঝড় একসঙ্গে আসে’’— বলেছেন   ইউনিভার্সিটি অব সাউদাম্পটন এর সমুদ্রবিজ্ঞানী সিমন বোক্সাল।

এবং ‘‘যদি সেখানে ফ্লোরিডার অংশ থেকে কিছু আসে তবে স্রোত নতুন দৈত্যরূপ ধারণ করে।’’

বোক্সাল বলছেন, এই দৈত্যকায় স্রোতগুলো ১০০ ফিট পর্যন্ত উঁচু হতে পারে।’’

যেটা এ যাবতকালের রেকর্ডকৃত তরঙ্গের (স্রোত) চেয়ে অনেক বেশি। ১৯৮৫ সালে এ রকম দৈত্যকায় স্রোতের কারণে সৃষ্ট সুনামিতে আলাস্কায় লিথুয়া উপত্যকায় ভূমিকম্প হয়েছিল।

একটি ইনডোর সিমুলার ব্যবহার করে বিজ্ঞানীরা আবিস্কার করতে সক্ষম হয়েছেন যে, কিভাবে ঢেউয়ের কারণে ১৯১৮ সালে ৩০৬ জন আরোহী নিয়ে একটি জাহাজ কিভাবে গায়েব হয়ে গিয়েছিল।গত বছর সাইক্লপ্সের এক নকশায় এই স্রোতের ব্যাপারে শক্ত সমর্থন মেলে। বারমুদা নিয়ে সাইক্লপ্স নামের একটি বিশেষ শক্তিসম্পন্ন জাহাজ গবেষণা কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

এটার নীচটা সমতল, এটা সহজে চলাচল করতে পারে এবং একদিনে প্রায় ৫০ ডিগ্রি যেতে পারে। এছাড়া ৪০ ফুট উঁচু স্রোতের মধ্যেও এটা যেতে পারে।

সাইক্লপ্সের দুটি জাহাজ, প্রোটিয়াস ও নেরিয়াস পরে অনুরূপ পরিস্থিতিতে হারিয়ে যায়।

আরেকটি সিমুলেশন গবেষণায় দেখা গেছে যে, ৫০ ফিটের একটি দৈত্যকায় স্রোত সমতল পাটাতনের জাহাজকেও ডুবিয়ে দিতে পারে।

ইউএস কোস্টগার্ড বলছে, বারমুদায় বিপর্যয়ের মতো সত্যিকার অর্থে আলাদা তেমন কিছুই নেই।

বারমুদায় জাহাজ এবং বিমান হারিয়ে যাওয়া কিংবা বিজ্ঞানীদের হয়রানি করার মতো তেমন কোনে ভৌগলিক স্থানের অস্তিত্ব খুঁজে পায়নি কোস্টগার্ড।

গত কয়েক বছরে বারমুদায় বিমান ও জাহাজ হারিয়ে যাওয়ার কারণ বিশ্লেষণ করে সেখানে হতাহতের পেছনে দৈব বা অদৃশ্যমান কোনো কারণ পাওয়া যায়নি।যা ঘটেছে তা দৃশ্যমান কারণেই ঘটেছে।

ন্যাশনাল ওশ্যান সার্ভিসের মতে, বারমুদায় যদি আবহাওয়া খারাপ থাকে এবং ওই সময় যদি দুর্বল নাবিকের হাতে মাস্তুল থাকে তবে ওই জায়গাটা ভয়ংকর স্থান হয়ে উঠে। বিশ্বের অন্যসব স্থানে যেমনটা ঘটে। সূত্র : হাফিংটন পোস্ট।

সংবাদ উৎস
হাফিংটন পোস্ট
ট্যাগ

এমন আরও সংবাদ

Close
Close