দেশজুড়ে

রক্ষা পেল না জবা রায় একই দিনে এস,এস,সি পরীক্ষার ফলাফল ও বাল্য বিবাহ

কাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ঃ দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলা ৬নং রামচন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের নয়াবাদ গ্রামের সন্তোষ চন্দ্র রায়ের কন্যা জবা রায়। ২ মাস আগেই জবা রায় বাল্য বিবাহের কূফল সম্পর্কে জানিয়ে আসতো এলাকার বিভিন্ন গ্রামের শিশু ও অভিভাবকদের। সেই জবা রায় সাম্প্রতিক গত ৬ মে সোমবার আনুমানিক রাত ১২ টায় নিজেই শিকার বাল্য বিবাহের। গোপন সূত্রে জানা যায়, তার বিয়ের আগে বাল্য বিবাহের খবর পেয়ে কাহারোল উপজেলার মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নিবেদিতা দাস প্রতিনিধি পাঠালে জবার বাবা-মা ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের বাল্য বিয়ে সম্পর্কে বোঝানো হয় এবং বিয়ে বন্ধের কথা জানিয়ে আসেন। শুধু তাই নয় বিয়ের ৪ দিন আগে একটি দাতা সংস্থার ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ কাহারোল এপি’র ম্যানেজার জানান, আমরা খুবই মর্মাহত জবা রায় আমাদের শিশু ফোরামের একজন সদস্য ছিল এবং জবার সম্পর্কে দাদু ফুলকুমার রায় তিনি আমাদের নয়াবাদ গ্রাম উন্নয়ন কমিটির সভাপতি হয়েও এই বিয়েতে যোগ সূত্র রাখে। তাই আমরা আমাদের পক্ষ হতে তার বাড়িতে যাই এবং বাল্য বিবাহের কূফল সম্পর্কে সচেতন করি। এতে ক্ষান্ত নয়, অন্যদিকে শিশু ফোরামের প্রতিনিধি রোমা বর্মনের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমরা চাইল্ড ফোরামের শিশুরা কয়েকজন মিলে জবার বিয়ে বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসিম আহমেদ এর সাথে সাক্ষাত করি এবং বাল্য বিয়ের বিষয়ে জানাই। কিন্তু সকল অপেক্ষা পেরিয়ে অবশেষে স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ সামাজিক ও আনুষ্ঠানিক ভাবেই বিয়ে সম্পন্ন করেন। জবার জন্ম তারিখ ছিল ১৮-০৯-২০০২, সে মিত্রবাটী উচ্চ বিদ্যালয় হতে এস,এস,সি পরীক্ষা দেয় এবং বিয়ের দিনেই ৩.১৭ পায়। জবা এখন স্বামীর বাড়িতে।

এমন আরও সংবাদ

Back to top button
Close
Close